যুক্তরাষ্ট্রে আজ রবিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 02:07pm

|   লন্ডন - 08:07am

|   নিউইয়র্ক - 03:07am

  সর্বশেষ :

  বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব আমেরিকা’র কমিটি ঘোষণা   রোহিঙ্গা সংকট দ্রুতগতিতে বাড়ছে, জরুরি সহায়তা প্রয়োজন : বিশ্বব্যাংক   ভেরিফিকেশনে গিয়ে ফুল-মিষ্টি দিয়ে পুলিশ সুপারের শুভেচ্ছা!   দেশের রেডিওতে শুদ্ধ বাংলা ব্যবহারের নির্দেশ   দ্বিতীয় মেয়াদেও প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী হবেন সিসি   ভুয়া খবরের প্রচার ঠেকাতে ‘বিশ্বস্ত সংবাদমাধ্যম’র র‍্যাংকিং করবে ফেসবুক   কঙ্গোতে বিদ্রোহীদের হামলায় ২২ সেনা নিহত   যুক্তরাষ্ট্রে সরকার ব্যবস্থায় অচলাবস্থা, নেপথ্য কারণ   টাওয়ার হ্যামলেটসকে ‘ট্রাম্পমুক্ত এলাকা’ ঘোষণা : নেতৃত্বে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কাউন্সিলর   সিলেটে অর্থমন্ত্রীর গাড়ির ধাক্কায় ১০ জন আহত   নাইজেরিয়ায় আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত ১২   জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ   রাজশাহীতে প্রথম ফ্লাইওভার নির্মাণের সিদ্ধান্ত   তহবিল সংকটের কারণে ফের শাটডাউনের শঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্র   ফিলিস্তিনকে সাড়ে ৪ কোটি ডলার খাদ্য সহায়তা দেবে না যুক্তরাষ্ট্র

স্বদেশ


দেশের রেডিওতে শুদ্ধ বাংলা ব্যবহারের নির্দেশ

দেশের রেডিও স্টেশনগুলোকে শুদ্ধ বাংলা ব্যবহার করে অনুষ্ঠান উপস্থাপনার নির্দেশ দিয়েছে তথ্য মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী তারানা

২০১৮-০১-২০ ১১:৫৭:০৫

বহিঃ বিশ্ব


দ্বিতীয় মেয়াদেও প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী হবেন সিসি

আগামী মার্চে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ নেবেন মিশরের প্রেসিডেন্ট জেনারেল আব্দেল ফাতাহ আল সিসি। শুক্রবার তিনি এ তথ্য

২০১৮-০১-২০ ১১:৫৪:১৫

লস এঞ্জেলেস


ক্যালিফোর্নিয়া যুবলীগের কর্মী সভা অনুষ্ঠিত

প্রেস বিজ্ঞপ্তি গত ১৪ই জানুয়ারী রবিবার সন্ধ্যায় ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট আওয়ামী যুব লীগ, সিটি যুবলীগ এবং ভ্যালী যুবলীগ লস-এন্জেলেসের সুনামধন্য আলাউদ্দিন

২০১৮-০১-১৮ ১২:১৯:২৬


নিউইয়র্ক


জ্যাকসন হাইটসে 'বাংলা মোবাইল ও ট্রাভেলস'-এর উদ্বোধন

নিউজ ডেস্ক : নিউইয়র্কে প্রবাসী বাংলাদেশীদের ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রাণকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত জ্যাকসন হাইটসে চালু হলো বাংলাদেশী মালিকানাধীন আরো একটি ব্যবসা

বিস্তারিত

ইউরোপের খবর


ব্রেক্সিট নিয়ে আলোচনায় ব্রাসেলসে থেরেসা মে

নিউজ ডেস্ক : ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেনের বের হয়ে যাওয়া (ব্রেক্সিট) নিয়ে শেষ মুহূর্তের দর কষাকষি করতে বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে গেছেন ব্রিটিশ

বিস্তারিত


চাকরীর খবর


পদবী প্রতিষ্ঠান আবেদনের শেষ তারিখ
Account Executive Dental Health Services - San Diego/Orange County, CA ২০১৫-০২-১৩
AIRPORT GUIDE 0845 City of Los Angeles Personnel Department ২০১৫-০২-১২

আর্কাইভ

খেলাধুলা

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক : ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে আজ সফরকারী শ্রীলঙ্কাকে ১৬৩ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।
মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে টসে জিতে আগে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩২০ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় টাইগাররা। জয়ের জন্য ৩২১ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ১৫৭ রানে গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা।

 শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যানরা ব্যাট করতে পেরেছেন ৩২.২ ওভার পর্যন্ত। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৯ রানের ইনিংসটি খেলেছেন থিসারা পেরেরা। বাংলাদেশের পক্ষে দারুণ বোলিং করে তিনটি উইকেট নিয়েছেন সাকিব। দুটি করে উইকেট গেছে অধিনায়ক মাশরাফি ও রুবেল হোসেনের ঝুলিতে।

এর আগে গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় পাওয়া বাংলাদেশ ফাইনালের পথে আরো এক ধাপ এগিয়ে গেল।


এলএবাংলাটাইমস/এস/এলআরটি

 

ইসলামী জীবন

চুক্তি সম্পন্ন : কোটা বাড়েনি, হজে যেতে পারবেন সোয়া লাখ বাংলাদেশী

নিউজ ডেস্ক : এ বছর হজযাত্রী কোটা বাড়েনি। গত বছরের মতো ২০১৮ সালের হজেও বাংলাদেশ থেকে মোট এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ করতে যেতে পারবেন। এর মধ্যে সাত হাজার সরকারি ব্যবস্থাপনায় এবং বাকি এক লাখ ২০ হাজার ১৯৮ জন যাবেন বেসরকারি এজেন্সির মাধ্যমে।

ধর্মমন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসাইন নয়াদিগন্তকে জানান, গত ১৪ জানুয়ারি সৌদি আরবে সে দেশের হজ ও ওমরা বিষয়ক মন্ত্রী ড. সালেহ তাহের বিন বানতেন এবং বাংলাদেশের ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের উপস্থিতিতে হজ চুক্তি সম্পন্ন হয়। এ সময় ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আনিছুর রহমান, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটক সচিব, সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত ও কাউন্সিলর হজ উপস্থিত ছিলেন।

আনোয়ার হোসাইন বলেন, হজযাত্রী বাড়ানোর জন্য আমাদের আবেদন ছিল। তবে এ বছর কোনো দেশেরই হজযাত্রী কোটা বাড়েনি। সেজন্য আমাদেরও বাড়েনি। গত বছরের সংখ্যাই বহাল রয়েছে।

হজ চুক্তি করতে ধর্মমন্ত্রীসহ কর্মকর্তারা গত ১২ জানুয়ারি সৌদি আরবে যান। তারা দেশে ফিরে হজ চুক্তির বিস্তারিত জানাবেন বলে উল্লেখ করেন ধর্মমন্ত্রণালয়ের এ সিনিয়র তথ্য অফিসার।


এলএবাংলাটাইমস/আইএল/এলআরটি

প্রবাসী কমিউনিটি

বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব আমেরিকা’র কমিটি ঘোষণা

নিউজ ডেস্ক : প্রবাসের অন্যতম ক্রীড়া সংগঠন বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব আমেরিকা’র উপদেষ্টা পরিষদ ও পূর্ণাঙ্গ কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয়েছে। গত ১৪ জানুয়ারী রোববার সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের একটি রেষ্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত স্পোর্টস কাউন্সিলের এক সভায় ২০১৮-২০১৯ সালের জন্য গঠিত সংগঠনের ১৩ সদস্য বিশিষ্ট উপদেষ্টা পরিষদ এবং ২৩ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরী কমিটি ঘোষণা দেয়া হয়।

উপদেষ্টা পরিষদ: মনজুর আহমেদ চৌধুরী, ছদরুন নূর, আব্দুর রহিম বাদশা, সামসুল আবদীন, ডা. মোহাম্মদ এনামুল হক, খসরুজ্জামান খসরু, আতাউর রহমান সেলিম, আজম চৌধুরী, শমসের আলী, হাজী এনাম, জুনেদ আহমদ চৌধুরী, আব্দুর নূর বড় ভূইয়া ও আব্দুল হাসিম হাসনু।

কার্যকরী পরিষদ: সভাপতি- মহিউদ্দিন দেওয়ান, সহ সভাপতি- মিসবা আবদীন ও ওয়াহিদ কাজী এলিন, সাধারণ সম্পাদক- মোহাম্মদ জুয়েল আহমদ, সহ সাধারণ সম্পাদক- মোহাম্মদ রশিদ রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক- সাইকুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ- মফিজুল ইসলাম রুমী, প্রচার সম্পাদক- তৈয়বুর রহমান টনি, দপ্তর সম্পাদক- আব্দুল কাদির লিপু এবং সদস্য- আব্দুল বাসিত খান বুলবুল, সৈয়দ এনায়েত আলী, কাজী তোফায়েল ইসলাম, আবু তাহির আসাদ, জহির উদ্দিন জুয়েল, নওশাদ হোসেন সিদ্দিকী, শাহাদৎ হোসেন, জাকির হোসেন, রফিকুল ইসলাম ডালিম, ইয়াকুত রহমান, আবিদ হোসেন মিষ্ঠু, সাইফুল আলম, মিজানুর রহমান চৌধুরী ও আশরাফুজ্জামান খান লিটন।


এলএবাংলাটাইমস/এএল/এলআরটি 

লস এঞ্জেলেস

ক্যালিফোর্নিয়া যুবলীগের কর্মী সভা অনুষ্ঠিত

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : গত ১৪ই জানুয়ারী রবিবার সন্ধ্যায় ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট আওয়ামী যুব লীগ, সিটি যুবলীগ এবং ভ্যালী যুবলীগ লস-এন্জেলেসের সুনামধন্য আলাউদ্দিন রেষ্টুরেন্টে আয়োজন করে বিশেষ কর্মী সভার। কর্মী সভায় উপস্থিত ছিলেন যুবলীগের সুবর্ন নন্দী তাপস, খন্দকার ইমতিয়াজ আহমেদ ইমু, তৌহিদুজ্জামান খান, ফারুক খান, সাইফুল আলম চৌধুরী, শেখ পলাশ , শচীন মজুমদার, হাবিবুর রহমান (ইমরান),আলমগীর হোসেন, রনি খান, বাবু ভুঁইয়ান, মো বাবুল শিকদার, মুহাম্মদ ইলিয়াস শিকদার, মোনামি শামস খান, শায়লা রুমী সহ আরও অনেকে। আয়োজিত এই কর্মী সভার প্রধান অতিথি হয়ে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ঘনিষ্ট রাজনৈতিক সহচর এবং সহকর্মী শরীয়তপুরের কৃতি সন্তান মরহুম এডভোকেট আবিদুর রেজা খানের পুত্র দীর্ঘদিন যাবত লস-এন্জেলেস প্রবাসী জনাব হাসান রেজা খান।

ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট আওয়ামী যুব লীগের অন্যতম যুগ্ম আহ্বায়ক খন্দকার আহমেদের সঞ্চালনে শুরুতেই প্রানবন্ত বক্তব্য রাখেন ভ্যালী আওয়ামী যুব লীগের আহ্বায়ক জনাব ইমরান আহমেদ, এরপর বক্তব্য রাখেন সিটি আওয়ামী যুব লীগের আহ্বায়ক জনাব আলমগীর হোসেন, স্বল্পদীর্ঘ বক্তৃতায় উনি দেশের উন্নয়নের কথা উল্লেখ করেন। ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট আওয়ামী যুবলীগের অন্যতম যুগ্ম আহ্বায়ক জনাব সাইফুল আলম চৌধুরীও উনার মূল্যবান বক্তৃতা প্রদান করেন।এই কর্মী সভায় আমন্ত্রণ গ্রহন করে আসবার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানান। আরো যারা তাদের মূল্যবান বক্তব্য দিয়েছেন তারা হলেন ষ্টেট আওয়ামী যুব লীগের উপদেষ্টা জনাব তৌহিদউজ্জামান খান, ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট আওয়ামী যুবলীগের উপদেষ্টা, ষ্টেট আওয়ামী লীগের প্রাক্তন সাধারন সম্পাদক জনাব ফারুক খান। উপস্হিত সুধীজনের মধ্য থেকে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন টরেন্স সিটি থেকে আগত জনাব শাহীন।

সভার প্রধান বক্তা ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট আওয়ামী যুব লীগের অন্যতম যুগ্ম আহ্বায়ক জনাব শেখ পলাশ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করে স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্তী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীর আবদানের কথা যুবলীগ নেতাকর্মীদের মনে করিয়ে দেন। অধীর আগ্রহে অপেক্ষার পর গুরুত্বপূর্ণ স্মৃতিচারন বক্তব্য দেন সবার বয়োজেষ্ঠ, বঙ্গবন্ধুর এবং মরহুম আবিদুর রেজা খানের রাজনৈতিক সহচর শরিয়তপুরের শ্রী রামনাথ নন্দী। উনি আওয়ামী লীগের বর্ষিয়ান প্রয়াত নেতা আবদুর রাজ্জাকের সাথে রাজনীতি করবার বিরল স্মৃতির কথা আবেগময় ভাষায় বর্ননা করেন। স্বাধীনতা পূর্ব এবং মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন পরিস্তিতির কথা উল্লেখ করে, সেইসব দিনগুলির ঐক্যের মত যুবলীগের সবাইকে নতুন করে ঐক্যবদ্ধ হবার উদ্দাত্ত আহ্বান জানিয়ে উনি উনার মূল্যবান বক্তব্য শেষ করেন।

প্রধান অতিথি জনাব হাসান রেজা খান ক্যালিফোর্নিয়াতে আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনগুলোকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবার আহবান জানান, উনি বলেন 'বিভাজন প্রতিপক্ষকে শক্তিশালী হতে সাহায্য করে',তাই তিনি মনে করে নির্বাচনী বৈতরনী পার করতে হলে ঐক্যের কোন বিকল্প নেই। উনার বাবা আগরতলা মামলায় বঙ্গবন্ধুর আইনজীবি হয়ে মামলা লড়েছেন বলে সবাইকে অবহিত করেন। স্বাধীনতা পরবর্তী ধ্বংসস্তুপ থেকে দেশকে বঙ্গবন্ধু কিভাবে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন তার বর্ননা দেন। যার ধারাবাহিকতায় দেশ আজ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে তা তিনি উল্লেখ করেন। এ কর্মী সভায় সব নেতা কর্মীরা সামনের ২০১৮ সনের নির্বাচনের উপর গুরুত্ব আরোপ করে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবার আহ্বান জানায়। কর্মীসভার সভাপতি ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট যুবলীগের আহ্বায়ক সূবর্ন নন্দী তাপস এর শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ বক্তৃতার মধ্য দিয়ে রাত অব্দী চলা সভাটির পরিসমাপ্তি ঘটে নৈশভোজের মধ্য দিয়ে।


এলএবাংলাটাইমস/এল/এলআরটি

বিনোদন


হিজাব পরে শ্যাম্পুর বিজ্ঞাপনে

নিউজ ডেস্ক : ‘ইচ্ছে থাকলে উপায় হয়’ এ কথাটা যেন আজ সত্যি করে প্রমাণ করে দিলেন ব্রিটিশ মুসলিম ব্লগার আমেনা খান। ভালো কিছুর জন্য কখনো কখনো স্রোতের বিপরীতেও

বিস্তারিত

রান্নাবান্না


চমচম মিষ্টি বানাবেন যেভাবে

নিউজ ডেস্ক : অতিথিদের সামনে হাতে বানানো চমচম পরিবেশন করলে কেমন হয়? ঐতিহ্যবাহী চমচম মিষ্টি বানিয়ে ফেলতে পারেন ঘরেই। জেনে নিন কীভাবে।

উপকরণ
দুধ- ১

বিস্তারিত


লন্ডন

যুক্তরাজ্যে ইইউ বহির্ভূত অভিবাসীদের তালিকায় শীর্ষ দশে বাংলাদেশিরা

নিউজ ডেস্ক : যুক্তরাজ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) বহির্ভূত অভিবাসীদের সর্বোচ্চ সংখ্যার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অষ্টম স্থানে অবস্থান করছে। ২০১৬ সালের জুলাই থেকে ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত হিসেবে তালিকায় বাংলাদেশের এই অবস্থান। এ সময়ে বাংলাদেশ থেকে ৬৯ হাজার মানুষ যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমিয়েছেন। বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের জাতীয় পরিসংখ্যান কার্যালয় (ওএনএস) এই তথ্য জানিয়েছে।

ওএনএস-এর তথ্য অনুসারে, ইইউ বহির্ভূত অভিবাসীদের তালিকায় শীর্ষ দশ দেশের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা (৭৫ হাজার) সপ্তম ও অস্ট্রেলিয়া (৭১ হাজার) ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে। এই সময়ে যুক্তরাজ্যে সর্বোচ্চ অভিবাসী আসা পাঁচটি দেশের মধ্যে রয়েছে ভারত (৩ লাখ ৫ হাজার), পাকিস্তান (১ লাখ ৭১ হাজার), চীন (১ লাখ ৯ হাজার), নাইজেরিয়া (৯০ হাজার) ও যুক্তরাষ্ট্র (৮৪ হাজার)।

সামগ্রিকভাবে ২০১৬ সালের জুনে ব্রেক্সিটের পক্ষে গণভোটের এই প্রথম অভিবাসীদের সংখ্যা কমেছে। এর আগের বছরের তুলনায় এই সময়ে অভিবাসীর সংখ্যা কমেছে ১ লাখ ৬ হাজার।

ওএনএস-এর অভিবাসন পরিসংখ্যানের প্রধান নিকোলা হোয়াইট জানান, সংখ্যা কমে এসেছে কারণ এর আগের বছর সর্বোচ্চ সংখ্যক অভিবাসী এসেছিল। এখনই বলা যাচ্ছে না বিষয়টি দীর্ঘ মেয়াদি প্রবণতা হবে। এই পরিবর্তনের ফলে মনে হচ্ছে মানুষের স্থানান্তরিত হওয়ার ক্ষেত্রে ব্রেক্সিটের প্রভাব থাকতে পারে। তবে অভিবাসন অনেক জটিল ও অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় থাকে।

গত বছরে ইইউ বহির্ভূত অভিবাসীদের যুক্তরাজ্য ছেড়ে চলে যাওয়ার সংখ্যা স্থিতিশীল রয়েছে। তবে ইইউ নাগরিকদের দেশটি ছেড়ে যাওয়া উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যমের একাংশ এই প্রবণতাকে ‘ব্রেক্সোডাস’ হিসেবে আখ্যায়িত করছে।

পরিসংখ্যান অনুসারে, ইইউ নাগরিকদের যুক্তরাজ্য থেকে চলে যাওয়ার পরিমাণ ২৯ শতাংশ (১ লাখ ২৩ হাজার)। ৪৩ জানিয়েছেন তারা নিজ দেশে ফিরে যাবেন। ২০০৮ সালের অর্থনৈতিক মন্দার পর যুক্তরাজ্য ছেড়ে চলে যাওয়ার এটিই সর্বোচ্চ সংখ্যা।

গত ১২ মাসে যুক্তরাজ্যে এসেছেন ৫ লাখ ৭২ হাজার মানুষ। আর অভিবাসিত হয়েছেন ৩ লাখ ৪২ হাজার। এই সময়ে অভিবাসীর সংখ্যা কমেছে ৮০ হাজার।

যুক্তরাজ্যের কনজারভেটিভ পার্টির সরকার বার্ষিক অভিবাসীদের সংখ্যা কমিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। সর্বশেষ এই পরিসংখ্যানকে স্বাগত জানিয়েছেন মন্ত্রীরা। বিরোধী দল লেবার পার্টি জানিয়েছে, সরকারের অভিবাসীদের সংখ্যা ১ লাখের নিচে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা অর্থহীন।

এলএবাংলাটাইমস/এ/এলআরটি

মধ্য প্রাচ্যের খবর

সৌদি আরবে ৫ সপ্তাহে আড়াই লক্ষাধিক প্রবাসী গ্রেপ্তার

নিউজ ডেস্ক : সৌদি আরবে অভিবাসন ও শ্রম আইন লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে পরিচালিত অভিযানে পাঁচ সপ্তাহে আড়াই লক্ষাধিক প্রবাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৫৪ হাজার প্রবাসীকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

সৌদি গেজেট জানিয়েছে, গত ১৫ নভেম্বর থেকে সমন্বিত ওই অভিযান শুরু হয়। ফেরত পাঠানোর অপেক্ষায় রাখা হয়েছে আরো ৪১ হাজার প্রবাসীকে।

সৌদি প্রেস এজেন্সি শুক্রবার জানিয়েছে, অভিযানে ২১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ১ লাখ ৩৬ হাজার ৯৯৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয় বাসিন্দাসংক্রান্ত আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে। এ ছাড়া ৮৩ হাজার ১৫১ জনকে শ্রম আইন লঙ্ঘনের দায়ে এবং সীমান্তসংক্রান্ত আইন অমান্য করার অভিযোগে আরো ৩২ হাজার ৯৩৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সৌদি প্রেস আরো জানিয়েছে, এ পর্যন্ত ৫৪ হাজার ৯২ জনকে তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। ৪১ হাজার ৩২৬ জনকে দেশে ফেরত পাঠানো হবে। বর্তমানে বিমানের টিকিটের জন্য অপেক্ষা করছেন তারা।

এ ছাড়া ৩ হাজার ১৫৬ জন সীমান্ত অতিক্রম করে সৌদিতে প্রবেশের চেষ্টা করতে গিয়ে গ্রেপ্তার হন। এদের মধ্যে ৭৬ শতাংশ ইয়েমেনের নাগরিক।

৫৩৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে আইন লঙ্ঘনকারীদের যানবাহন সুবিধা ও আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে। আইন লঙ্ঘনকারী ৩৬ হাজার ৯৪২ জনের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ৩৭ হাজার ২৩০ জনের বিষয়টি নিজ নিজ দেশের কূটনৈতিক মিশনে পাঠানো হয়েছে ট্রাভেল ডক্যুমেন্ট ইস্যুর জন্য।


এলএবাংলাটাইমস/এমই/এলআরটি

বিজ্ঞাপন

লাইফ স্টাইল


নতুন বছরের ৮ অঙ্গীকার

নিউজ ডেস্ক : নতুন বছরের শুরুতে উৎসাহ-উদ্দীপনা-উদ্যম টগবগিয়ে ফুটতে থাকে। একটা সজীব সূচনার জন্য অনেকেই তাই বছরের প্রথম দিনটাকে বেছে নেন।

কিন্তু দেখা যায়,

বিস্তারিত

নামাযের সময়সূচি

জনমত জরিপ


আইটি

ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধার অভিনব সানগ্লাস

নিউজ ডেস্ক : স্পেক্ট্যাকেলস-এর কথা নিশ্চয় মনে আছে। ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধার এই সানগ্লাস ২০১৬ সালে বাজারে নিয়ে আসে মেসেজিং অ্যাপ স্ন্যাপচ্যাট।

এবার আরো একটি কোম্পানি ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধার অভিনব সানগ্লাস নিয়ে এসেছে। স্মার্ট সানগ্লাসটির নাম ‘এসিই আইওয়্যার’। এটি তৈরি করেছে ইলেকট্রিক স্কেটবোর্ড নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাকটন।

স্পেক্ট্যাকেলস সানগ্লাসে যেখানে কেবল ৩০ সেকেন্ড ভিডিও রেকর্ডিং এবং তা স্ন্যাপচ্যাটে পোস্ট করা যায়, সেখানে নতুন এসিই আইওয়্যার সানগ্লাসে টানা ৪০ মিনিট ভিডিও রেকর্ডিং সম্ভব।

শুধু তাই নয়, এসিই আইওয়্যার সানগ্লাসে তোলা ছবি বা ভিডিও স্মার্টফোন অ্যাপের মাধ্যমে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম বা ইউটিউবে যেমন পোস্ট করা যাবে, তেমনি আবার এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ভিডিও লাইভ স্ট্রিমিংও করা যাবে।

এসিই আইওয়্যার সানগ্লাস ৮ মেগাপিক্সেল মানের ছবি এবং এইচডি মানের ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধাসম্পন্ন। এই সানগ্লাসের ক্যামেরা ঘুরবে ১২০ ডিগ্রি পর্যন্ত। সানগ্লাসটি ৪ জিবি মেমোরি সমৃদ্ধ। ৪০ মিনিট ভিডিও রেকর্ডি করা যাবে। ক্যামেরার ব্যাটারি টানা চলবে টানা দেড় ঘণ্টা, স্ট্যান্ডবাই মোডে ৮০ ঘণ্টা।

স্নানগ্লাসে যে ক্যামেরা রয়েছে, তা বাইরে থেকে দেখে বোঝার উপায় নেই। গোপনে ফটো ও ভিডিও ধারণ করা যাবে বিধায় অনেকেই মনে করছেন এটা মানুষের ব্যক্তিস্বাধীনতা নষ্ট করতে পারে। সানগ্লাসের উপরে বাঁ দিকের ফ্রেমে বোতাম চেপে ছবি তোলা কিংবা ভিডিও রেকর্ডিং শুরু করা যাবে। সানগ্লাসটি ধুলোবালি এবং পানি প্রতিরোধক।

এসিই আইওয়্যার সানগ্লাসের দাম ১৯৯ মার্কিন ডলার। আগামী এপ্রিল থেকে বিশ্বব্যাপী এর শিপিং শুরু হবে।  তবে বর্তমানে প্রি-অর্ডার করে রাখলে দাম পড়বে ৫০ শতাংশে ছাড়ে মাত্র ৯৯ ডলার। ওয়েবসাইট : https://shop.actonglobal.com/products/ace-eyewear।


এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

সুস্থ থাকুন

চোখে যদি ঘুম না আসে

নিউজ ডেস্ক : শান্তিতে ঘুমোতে কে না চায়? প্রতি রাতে বিছানায় শুয়ে এপাশ-ওপাশ করে, পাখার স্পিড বাড়িয়ে অতি প্রত্যাশায় ভোগা, হাজার হাজার ভেড়া গোনা এবং শেষ পর্যন্ত যখন কোনো কিছুতেই কাজ হয় না, তখন দূর ছাই বলে উঠে গিয়ে এক গ্লাস পানি বা আরেকটি ঘুমের বড়ি টপ করে গিলে ফেলা- আ:।

ডাক্তারি পরিভাষায় একেই বলে ইনসোমনিয়া বা অনিদ্রা। এই সমস্যা এখন এতটাই প্রকট হয়ে ধরা দিয়েছে যে, আমেরিকায়ও চিকিৎসাশাস্ত্রের পঠন-পাঠনে একটা নতুন শাখাই খোলা হয়েছে- যার নাম ‘স্লিপ ডিসঅর্ডার মেডিসিন।’

ঘুম কতটা দরকার
নিদ্রাহীন রাত নিয়ে যতই কাব্য, গান আর রোমান্স থাকুক না কেন, বাস্তব ক্ষেত্রে পরপর কয়েক দিন ‘আঁখিপাতে’ ঘুম না থাকলে আতঙ্ক হয়, শারীরিক, মানসিকভাবে বিধ্বস্ত হয়ে পড়তে হয়। নিজের ওপর আস্থা হারিয়ে যায়। তখন যে কোনোভাবে একটু ঘুমই শুধু কাম্য হয়ে ওঠে।
জীবনের এক-তৃতীয়াংশেরও বেশি সময় আমরা ঘুমাই। বয়স অনুযায়ী অবশ্য ঘুমের একটা স্বাভাবিক ছন্দ আছে। শিশুরা খুব বেশি ঘুমায়। বয়সের সাথে সাথে ঘুমের এই সময়সীমা কমে যায়। বৃদ্ধরা স্বাভাবিকভাবেই কম ঘুমান। আসলে শারীরবৃত্তীয় প্রয়োজনের ওপরই নির্ভর করে ঘুমের এই মাপ। তবে খুব কম বা খুব বেশি ঘুম কোনোটাই স্বাভাবিক নয়। চিকিৎসাশাস্ত্র মতে, একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের চার থেকে ৯ ঘণ্টা ঘুম স্বাভাবিক এবং ছয় থেকে সাত ঘণ্টা হলো আদর্শ। দেখা গেছে, যারা ৯ ঘণ্টা বা তারও বেশি ঘুমান, তাদের মধ্যে বিভিন্ন অসুখের প্রবণতা বেশি। সুতরাং বয়স অনুপাতে ঠিক সময় ঘুমই স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

ইনসোমনিয়া আসলে কী
ঘুম ও স্বপ্ন চিরকালই মনোবিজ্ঞানীদের কৌতূহলের বিষয়। বৈজ্ঞানিকদের মতে, ঘুমের মধ্যে দুই ধরনের দশা থাকে। একটিকে বলা হয় ‘আরইএস বা র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট দশা’ আরেকটিকে বলা হয় ‘এনআরইএস বা নন-র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট দশা’। এক ঘুমের মধ্যেই এই দু’টি দশা ঘুরেফিরে চলতে থাকে। আরইএস দশায় শরীরে গরম বেশি লাগে, পালস রেট ও রক্তচাপ বেড়ে যায় এবং এই দশাতেই মানুষ স্বপ্ন দেখে। এটাকে বলা হয় পাতলা ঘুমের স্তর। এনআরইএস দশায় মানুষ গভীরভাবে ঘুমায়।

ইনসোমনিয়াকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে :
১. ইনিশিয়াল বা প্রাথমিক ইনসোমনিয়া : যাদের ঘুম আসতে দেরি হয় বা অসুবিধা হয়।
২. মিডল ইনসোমনিয়া : যাদের ঘুম বারবার ভেঙে যায় এবং
৩. টারমিনাল ইনসোমনিয়া : যাদের ঘুম তাড়াতাড়ি ভেঙে যায়।
আর যাদের সব অসুবিধাই আছে, তাদের ক্ষেত্রে বলে গ্লোবাল ইনসোমনিয়া।

চিকিৎসা
ইনসোমনিয়া যে কারণে হয়েছে, তার চিকিৎসাই প্রথমে করা হয়। তা ছাড়া ইনসোমনিয়ার জন্য আলাদা করে কিছু বিশেষ ওষুধ দেয়া হয়। কোনো কোনো রোগী অবশ্য শুধু ইনসোমনিয়ার চিকিৎসাই করাতে চান, কিন্তু সে ক্ষেত্রেও রোগীর কেস হিস্ট্রি নিয়ে বিচার-বিবেচনা করতে হয়। ইনসোমনিয়ার রোগীর চেহারায় একটা অবসাদ, ক্লান্তিভাব আসে। অনেক সময় রোগী নিজেই ঘুমের ওষুধ নিয়ে থাকেন। এর ফলাফল ভয়াবহ হতে পারে। নিচের নিয়মগুলো মেনে চললে উপকার পেতে পারেন :

• বিছানা শুধু ঘুমের জন্যই নির্দিষ্ট করে রাখুন। বিছানায় বসে টিভি দেখা, আড্ডা দেয়া, খাবার খাওয়া বন্ধ করুন।
• খালি পেটে কখনো শুতে যাবেন না। তবে রাতে গুরুভোজ করবেন না। বেশি ভরা পেটে শুতে যাওয়াও ঠিক নয়। আবার খেয়েই সাথে সাথে শুয়ে পড়াও অনুচিত। খাওয়া ও শোয়ার মধ্যে সময়ের ব্যবধান রাখুন।
• শোয়ার আগে এক গ্লাস দুধ খেতে পারেন। দুধে থাকে ট্রিপটোফ্যান, যা আপনাকে ঘুমাতে সাহায্য করবে।
• নিয়মিত গোসল ও শুতে যাওয়ার আগে আরামবোধ করলে ঘাড়ে, মুখে ও পায়ে পানি দিয়ে মুছে নিতে পারেন।
• ঘুমাতে যাওয়ার সময় সারা দিনের ক্লান্তি, বিপর্যয় বা উত্তেজনার কারণগুলো নিয়ে চিন্তা করবেন না।
• খুব বেশি উত্তেজিত হয়ে বিছানায় যাবেন না।
• ঘুমের আগে কোনো ভারী কাজ বা অত্যধিক মাথার কাজ করা থেকে বিরত থাকুন।
• প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমাতে যাওয়ার চেষ্টা করুন।
• দুপুরের ঘুম আপনার শুধু কর্মক্ষমতাই কমায় না, আপনার রাতের ঘুমও নষ্ট করে। অতএব, এটি বাদ দিন।
• ঘুমাতে যাওয়ার আগে সিগারেট, তামাক, চা, কফি না খাওয়াই ভালো।
• দু-এক দিন ঘুম না হওয়াতেই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হবেন না। তবে নিয়মিত না হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

এলএবাংলাটাইমস/এইচ/এলআরটি

ফটো গ্যালারি

জনপ্রিয় পত্রিকাসমূহ

কলাম

বঙ্গবন্ধুর সাথে স্বপ্নে কিছু কথা

সিরাজী এম আর মোস্তাক : ০২ জানুয়ারী, ২০১৮। আরবী মাসের ১৪ তারিখ। আইয়্যাম বিজের ২য় রোজা পালনের পর শেষ রোজার জন্য প্রস্তুত। যথারীতি বই পড়তে পড়তে ঘুমে পড়েছি। স্বপ্নে দেখি, গ্রামের পরিবেশে শীতের সকালে মিষ্টি রোদে ঘরের বারান্দায় বসে কোরান পাঠ করছি। তাকিয়ে দেখি, সামনে বঙ্গবন্ধু দাঁড়িয়ে। স্বাভাবিক বেশভূষা। সাদা পাঞ্জাবি, পাজামা ও কালোকোট। ৭ই মার্চে ভাষণদানকালে যে পোশাক ছিল, হুবহু তাই। আমি তো অবাক! ভালো করে নজর করলাম, দিব্যি বঙ্গবন্ধু। আমি অস্থির হয়ে উঠে পড়লাম। তাড়াতাড়ি বারান্দা থেকে নামতে লাগলাম। বঙ্গবন্ধু শান্ত গলায় বললেন,
থাম! এতো অস্থির হবার দরকার নেই।
আমি বারান্দা থেকে নামতেই বঙ্গবন্ধু হাত এগিয়ে দিলেন। আমি আস্সালামু আলাইকুম বলে হাত ধরেই বঙ্গবন্ধুকে জড়িয়ে ধরলাম। এতোটাই আবেগাপ্লুত হলাম যে, হাউমাউ করে কান্না শুরু করলাম। বঙ্গবন্ধু আমাকে শান্ত করার চেষ্টা করলেন। এরপর দেখি, একটি সুন্দর চেয়ারে উঠানে মিষ্টি রোদে বঙ্গবন্ধুকে বসিয়েছি। আর তখনও হাত ধরে আছি।
আমি বললাম, পিতা! কেমন আছেন?
বঙ্গবন্ধু হাত ছেড়ে (ধমকের সুরে) বললেন, এই! তুই আমাকে পিতা বললি কেন?
আমিঃ আপনি তো বাঙ্গালি জাতির পিতা।
বঙ্গবন্ধুঃ সাবধান! আমাকে জাতির পিতা বলবিনা।
আমিঃ আমিতো শুধু জাতির পিতা বলিনি। বাঙ্গালি জাতির পিতা বলেছি।
বঙ্গবন্ধুঃ (কিছুক্ষণ থেমে) ও....! তাহলে ঠিক আছে।
বঙ্গবন্ধুঃ আমি অল্প সময়ের জন্য তোর সাথে দেখা করতে এসেছি।
বঙ্গবন্ধুঃ তুই রোজা আছিস না?
আমিঃ জ্বি পিতা। (স্বপ্নে মনে হচ্ছে, আমি রোযা আছি)।
বঙ্গবন্ধুঃ আমি তোকে একটি কষ্টের কথা জানাবো।
আমিঃ জ্বি পিতা, বলেন?
বঙ্গবন্ধুঃ প্রতিবছর বেশ কয়েকদিন আমাকে বিশেষভাবে স্মরণ করা হয়। তাতে কোরানখানী, পুস্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা অনুষ্ঠানসহ কত কি হয়। এবছর ১৫ই আগষ্টের রাতে সাইফুল নামে একজন কোরানের হাফেজকে হত্যা করা হয়েছে। নিহতের হাফেজ পিতাকেও নির্যাতন করা হয়েছে। আমার যে কী কষ্ট হয়েছে, বুঝাতে পারবোনা।
আমি কান্না করছি। চোখের পানি মুছে ফুরাতে পারছিনা।
বঙ্গবন্ধুঃ তুই কাঁদিস ক্যান?
আমিঃ পিতা! আপনি কারো সাথে দেখা করে এটা বলেননি?
বঙ্গবন্ধুঃ আমার দেখা করার পারমিশান নাই।
আমিঃ পিতা! আমার সাথে..?
বঙ্গবন্ধুঃ শুধু তোর সাথে অল্প সময়ের জন্য দেখা করার পারমিশান পেয়েছি।
আমিঃ পিতা! একজন কোরানের হাফেজকে হত্যা করলো কেন?
বঙ্গবন্ধুঃ ওরা তাকে জঙ্গি হিসেবে হত্যা করেছে।
বঙ্গবন্ধুঃ তুই সেদিন রোজা ছিলি। তোর দোয়ায় আমি শান্তি পেয়েছি।
আমিঃ পিতা! সেদিন আমি হয়তো আইয়্যামবিজের রোজা ছিলাম।
বঙ্গবন্ধুঃ যে রোজাই হোক।
আমিঃ আল্লাহর কাছে আরো দোয়া করছি, আপনার যেন স্থায়ী শান্তি হয়।
বঙ্গবন্ধুঃ তোকে একটা দায়িত্ব দিচ্ছি। গত ১৫ই আগষ্টে আমার কষ্টের বিষয়টি সবাইকে জানিয়ে দিস।
আমিঃ কাকে জানাবো? কিভাবে জানাবো?
বঙ্গবন্ধুঃ সবাইকে জানাবি। লেখার মাধ্যমে জানাবি।
আমিঃ আমার লেখা কয়জনইবা প্রকাশ করবে, আর কয়জনইবা দেখবে?
বঙ্গবন্ধুঃ সে চিন্তা তোর কেন? তোকে দায়িত্ব দিয়েছি, তুই জানাবি।
আমিঃ পিতা! এতে আমার ক্ষতি হবে না তো?
বঙ্গবন্ধুঃ ইনশাল্লাহ, কেউ তোর ক্ষতি করবেনা।
আমিঃ ইনশাল্লাহ, অবশ্যই জানাবো।
বঙ্গবন্ধুঃ শুকরান। তবে সাবধান।
আমিঃ কেন পিতা?
বঙ্গবন্ধুঃ তুইতো রাজনীতি বুঝিসনা।
আমিঃ কিসের রাজনীতি?
বঙ্গবন্ধুঃ এখন চলছে- জঙ্গি অভিযান, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, অবৈধ স্বার্থ হাসিল আরো অনেক কিছু।
আমিঃ এসব নিয়ে রাজনীতি হয় কিভাবে?
বঙ্গবন্ধুঃ এ যে জঙ্গি অভিযান। সম্পুর্ণ রাজনীতির খেলা। যেমন- গুলশান হলি আর্টিজানে হামলা। এটা সবারই জানা।
আমিঃ জ্বী পিতা, তাই?
বঙ্গবন্ধুঃ হলি আর্টিজানে হামলার পর সেনাবাহিনীর প্রেসব্রিফিং শুনিসনি? তারা বললো, মাত্র ৬/৭ জঙ্গি হামলা চালিয়েছে। জঙ্গিদের আক্রমণে প্রথমেই ২পুলিশ নিহত ও ৪০পুলিশ আহত হয়েছে। তারপর জঙ্গিরা হোটেলে প্রবেশ করে ১৫/১৬ জনকে নিরাপদে ছেড়ে দিয়েছে। আর দেশের সুদক্ষ প্রতিরক্ষাবাহিনী জঙ্গিদেরকে সারারাত অবকাশ দিয়েছে। এসুযোগে জঙ্গিরা ২০ জনকে হত্যা করে সারারাত হোটেলের মেঝেতে নিরবে কাটিয়েছে। সকালে অপারেশন থান্ডারবোল্ট শুরু হলে, জঙ্গিরা যুদ্ধ করে নিহত হয়েছে। এঘটনার পর এখনও সে হামলায় অভিযুক্তদের পাওয়া যায় কিভাবে? এটা কি রাজনীতির খেলা নয়? থাক, তুই বুঝবিনা।
আমিঃ ও আচ্ছা! এটা বলার দুঃসাহস কি কারো আছে?
বঙ্গবন্ধুঃ ঠিকই। ঘুমন্ত ও অলস বাঙ্গালি জাতিকে সহজে জাগানো যায়না।
বঙ্গবন্ধুঃ তুই বিসিএসে ২বার ভাইভা দিয়েছিস। তোর চাকরি হয়নি কেন, জানিস?
আমিঃ পিতা! আমি জানিনা।
বঙ্গবন্ধুঃ এটাও রাজনীতি। তোর মুক্তিযোদ্ধা কোটা নেই, তাই চাকরি হয়নি।
আমিঃ জ্বী পিতা? মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে রাজনীতি?
বঙ্গবন্ধুঃ এটা আরো জঘন্য রাজনীতি।
আমিঃ তার মানে?
বঙ্গবন্ধুঃ দেশ স্বাধীনের জন্য আমি কতইনা সংগ্রাম করেছি। অথচ মাত্র ২লাখ তালিকাভুক্ত ব্যক্তি স্বাধীনতার স্বার্থ ভোগ করছে।
আমিঃ পিতা! আপনি বর্তমান ঘটনাবলীও দেখতে পান এবং জানেন?
বঙ্গবন্ধুঃ আমি সাধারণ মৃতদের মতো নই। আমি জীবিত। তোরা বুঝবিনা। আমি সবই দেখতে পাই, সবই বুঝি। শুধু প্রকাশ করতে পারিনা।
আমিঃ জ্বী পিতা! আপনি কি মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা করেননি? অসহায়, দুস্থ ও পঙ্গু মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা দেননি?
বঙ্গবন্ধুঃ শুধুমাত্র ৬৭৬ জনকে খেতাব দিয়েছিলাম। এছাড়া দেশের আপামর জনতাকেই মুক্তিযোদ্ধা ও লাখো শহীদ পরিবারের সদস্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিলাম। তখন মুক্তিযোদ্ধা-ভাতা বা কোটার প্রয়োজন ছিলনা। আমি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ও করিনি। আমি কি জানতাম, ওরা ৩০লাখ শহীদ নিয়ে প্রশ্ন তুলবে? ৩০লাখ শহীদ পরিবারকে বাদ দিয়ে মাত্র ২লাখ মুক্তিযোদ্ধা তালিকা করবে? আমি কখনো মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ আলাদা করিনি।
বঙ্গবন্ধুঃ তুই আফসোস করিসনা। তোর বিসিএস হয়নি তো কি হয়েছে? তুই কি এখনও ঐ চাকরি চাস?
আমিঃ পিতা! আমি ধন্য। আমি আপনার কাছ থেকে সান্তনা পেয়েছি। তবে পিতা! আমার মতো আরো বহুজন এ বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। এর কোনো প্রতিকার নেই?
বঙ্গবন্ধুঃ অবশ্যই আছে। মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে রাজনীতি বন্ধ করতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা-ভাতা ও কোটা বাতিল করতে হবে। তখন কেউ মুক্তিযোদ্ধা পদবি ব্যবহার করে অবৈধ স্বার্থের জন্য বাড়াবাড়ি করবেনা। তখন ৩০লাখ শহীদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন উঠবেনা। ৩০লাখ শহীদ পরিবার বঞ্চিত হবেনা। সবাই খাঁটি দেশপ্রেমিক হবে।
বঙ্গবন্ধুঃ আমার সময় শেষ। ঐ দেখ, ডাকতে এসেছে।
আমিঃ (কান্না করছি) কোথায়?  কাউকে তো দেখা যাচ্ছেনা।
বঙ্গবন্ধুঃ তুই দেখতে পাবিনা। যা দায়িত্ব দিলাম, ঠিকমতো পালন করিস।
আস্সালামু আলাইকুম বলে হাত এগিয়ে দিলেন। আমি আবার বঙ্গবন্ধুকে জড়িয়ে ধরেছি। চোখ দিয়ে অঝোরে পানি পড়ছে।
এসময় ঘুম ভেঙে গেল। দেখি, চোখের পানিতে বালিশটা বাস্তবেই ভিজে গেছে। মনে হলো, কি মহান সম্পদ হারালাম। হায় আবার যদি বঙ্গবন্ধুর দেখা পেতাম! খুবই অস্বস্তি বোধ করছিলাম। রাত বাজে তিনটা। নফল নামাজ পড়লাম। তারপর সেহরী সেরে কোরান পড়ে বঙ্গবন্ধুর জন্য দোয়া করলাম। স্বপ্নে বঙ্গবন্ধুর কাছে যা শুনলাম, তা সত্যি কিনা যাচাই করার জন্য নিহত হাফেজ সাইফুল লিখে গুগলে সার্চ দিলাম। দেখলাম, সম্পুর্ণ সঠিক। আমি জানতাম না, ১৫ই আগষ্টে হাফেজ সাইফুল নামে কারো হত্যার ঘটনা। আবার হাফেজ সাইফুলের বাবা হাফেজ কিনা, তা জানার প্রশ্নই আসেনা। বঙ্গবন্ধু স্বপ্নে আমার সাথে দেখা করে তাঁর এ কষ্টের কথা বলার অর্থ কি, আমি ভেবে পাচ্ছিলামনা। স্বপ্নের এ কথাগুলো লেখা উচিত কিনা, অনেক চিন্তা করলাম। বিবেকের তাড়নায় লিখতে বাধ্য হলাম। আমি পেশাদার লেখক নই। তাই ভূল-ভ্রান্তি অস্বাভাবিক নয়। মূলত এটা স্বপ্নে দেখা বিষয়। তবু আশংকা হয়, বিষয়টি কে কিভাবে নেয়। আসলে স্বপ্ন নিয়ে রাজনীতি করার কিছু নেই। আমি স্বপ্নে বঙ্গবন্ধুর দেয়া নির্দেশ পালন করেছি, শুধু এ আশায়- যদি আবার বঙ্গবন্ধুর দেখা পাই।


টুকিটাকি খবর

মৃত ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পর মর্গে জেগে ওঠল মরদেহ!

নিউজ ডেস্ক : তিন চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করলেও হাসপাতাল মর্গে জেগে ওঠল মৃতদেহ। স্পেনের স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানিয়েছে বিবিসি।

স্পেনের আস্তুরিয়াস অঞ্চলের এক কারাগারের বন্দি গঞ্জালো মন্তয়া জিমেনেজকে মৃত ঘোষণার পর হাসপাতালে মর্গে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কয়েক ঘণ্টা পর তিনি জেগে ওঠলে ঘটনাটি সাড়া পড়ে যায় তখন। তার পরিবার জানান, মৃত ঘোষণার পর সমাহিত করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তারা।

তারা জানান, তার ময়নাতদন্তের জন্য চিহ্নিত করে রাখা হয়েছিল। তার আগ মুহুর্তে গঞ্জালো জেগে ওঠেন। তাকে এখন হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। কেন এধরণের ঘটনা ঘটল তার কারণ জানা যায়নি এখনো। কারণ অনুসন্ধানের জন্য গঞ্জালোকে প্রাদেশিক রাজধানীর মেডিসিন ইন্সটিটিউটে নিয়ে যাওয়া হবে।

 এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

তারুণ্য

ইসলামের দিকে ঝুঁকলেন আরবের জনপ্রিয় পপ তারকা

নিউজ ডেস্ক : গত সেপ্টেম্বরে আমাল হিজাজী যখন ঘোষণা দিলেন যে তিনি তার সঙ্গীতের ক্যারিয়ার থেকে অবসরে যাচ্ছেন, সেটা তাঁর ভক্তদের জন্য ছিল এক বিরাট ধাক্কা। আমাল তখন বলেছিলেন, আল্লাহ তার প্রার্থনায় সাড়া দিয়েছেন। তিনি ইসলামের মধ্যেই তার সুখ-শান্তি খুঁজে পেয়েছেন। খবর- বিবিসির।

আমাল হিজাজী যখন তার গান-বাজনা ছেড়ে পুরোপুরি ইসলামী অনুশাসন মেনে জীবন-যাপন শুরু করলেন, তাঁর ভক্তরা অবাক হয়েছিলেন তখন।

কিন্তু তিন মাসের মাথায় তিনি আবার ফিরে এসেছেন গানের জগতে। তবে একেবারে নতুন রূপে এবং ভিন্ন ধরণের গান নিয়ে। ইসলামের নবী মুহাম্মদের জন্মবার্ষিকীতে তাঁকে নিয়েই একটি গান গেয়েছেন তিনি।

লেবাননের শিল্পী আমাল হিজাজী আরব দুনিয়ার জনপ্রিয় পপ তারকাদের একজন। ২০০১ সালে তাঁর প্রথম পপ রেকর্ড বাজারে আসে। পরের বছর দ্বিতীয় অ্যালবামেই তিনি এক সফল সঙ্গীত তারকায় পরিণত হন। এক দশকের মধ্যেই আমাল হিজাজী হয়ে উঠেন আরব বিশ্বের জনপ্রিয়তম সঙ্গীত তারকা।

২০০২ সালে আমাল হিজাজীর অ্যালবাম 'জামান' বাজারে আসে। এটিকে বিবেচনা করা হয় আরবী পপ সঙ্গীতের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়া অ্যালবাম।

গত সেপ্টেম্বরে আমাল হিজাজী তার এক ফেসবুক পোস্টে জানিয়েছিলেন তিনি সঙ্গীতের জগত ছেড়ে যাচ্ছেন।
তখন তিনি তার হিজাব পরিহিত একটি ছবিও পোস্ট করেন। এতে তিনি লিখেন, "যে শিল্প আমি ভালোবাসি এবং যে ধর্মের নৈকট্যকে আমি লালন করি, এই দুটি নিয়ে আমাকে অনেক দিন ধরেই বোঝাপড়া করতে হচ্ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আল্লাহ আমার প্রার্থনায় সাড়া দিয়েছেন।"

নবী মুহাম্মদের জন্মবার্ষিকীতে তাঁকে নিয়ে আমাল হিজাজী যে গানটি গেয়েছেন, সেটি তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন।

ইতোমধ্যে ৮০ লাখ ভক্ত তাঁর এই গানটি শুনেছেন এবং আড়াই লাখের বেশি মানুষ এটি শেয়ার করেছেন। তবে আমাল হিজাজীর এই নতুন রূপ এবং নতুন গান নিয়ে তুমুল বিতর্কও চলছে।

যেভাবে তিনি হিজাব পরেছেন, তার যে সাজ-সজ্জা, সেটা কতটা ইসলাম সম্মত তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। ইসলামে এভাবে মহিলাদের গান করার বিধান আছে কিনা সেটা জানতে চেয়েছেন অনেকে।

আবু মুহাম্মদ আল আসতাল নামের একজন ফেসবুকে লিখেছেন, "তিনি যা করছেন তা ইসলাম সম্মত নয়।"
জেইনাব মুসেলমানি লিখেছেন, "আল্লাহ যা হারাম বলেছেন, সেটা প্রশংসা দয়া করে বন্ধ করুন। তার প্রশংসা বন্ধ করুন, তাকে বরং পথ দেখান।। ধর্মটা কেন অনেকের কাছে রসিকতার ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে?"

তবে অনেক ভক্ত আবার আমাল হিজাজীর প্রশংসা করেছেন। দিনা মিশিক নামে একজন লিখেছেন, "যে মহিলা কিনা ধর্মে যা নিষিদ্ধ তা করা বন্ধ করেছে, হিজাব পরা শুরু করেছে এবং নবীর জন্য গান করছে, তোমরা কিভাবে তার সমালোচনা করো।"
এলএবাংলাটাইমস/ওয়াই/এলআরটি

মুদ্রাবাজার ও আবহাওয়া

গুরুত্বপূর্ণ লিংক